অফিসে কাজ করতে করতে হঠাৎ সবকিছু কেঁপে উঠলো। কিছুক্ষণের মধ্যেই বুঝতে বাকী রইলো না, ভূমিকম্প হয়েছে।

কয়েকটি বিদেশি নিউজ সাইট দেখতেই যেন আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ল। আসলে কি হতে চলেছে? একের পর এক অনুভূত হচ্ছে ভূমিকম্প। এক ঘণ্টার ব্যবধানে পাঁচ দফায় ভূমিকম্প অনুভূত হয়েছে ঢাকাসহ সারা দেশে। যা একযোগে কাঁপিয়েছে ভারত ও নেপালকেও। সবকটি ভূমিকম্পেরই উৎপত্তিস্থল ছিলো নেপাল।

ইউএসজিএ জানায়, প্রথম ভূমিকম্পটি অনুভূত হয় বাংলাদেশ সময় বেলা ১২টা ১৩ মিনিটে। এই ভূমিকম্পের কেন্দ্রস্থল ছিলো নেপালের পোখরায়। সেখানে রিখটার স্কেলে মাত্রা ছিলো ৭.৯।

আশঙ্কার কথা হচ্ছে, যে কোনো সময় আরও বড় ধরনের ভূমিকম্প হতে পারে। ভূমিকম্প হলে আমাদের যা করতে হবে:

•    ভূমিকম্প হলে সবাইকে মাথা ঠাণ্ডা রাখতে হবে
•    কম্পন শুরু হলে বালিশ, কম্বল, বই-খাতা, কাঁথা দিয়ে ডেকে রাখতে হবে
•    কম্পন না থামা পর্যন্ত খাট, ডাইনিং টেবিল, ও রুমের কোণে আশ্রয় নিতে হবে
•    চুলা, বিদ্যুৎ জ্বালানো থাকলে বন্ধ করতে হবে
•    জানালার পার্শ্বে দাড়ানো একদমই যাবে না
•    উঁচু ভবণে থাকলে লিফট ব্যবহার করা যাবে না
•    আর আপনি যদি যানবাহনে চলাচল করছেন, এমন অবস্থায় ভূমিকম্প শুরু হয়। তখন আপনাকে রাস্তার পাশে খোলা জায়গায় গাড়ির ইঞ্জিন বন্ধ করে অবস্থান করতে হবে।
•    ভূমিকম্পের সময় টর্চলাইট হাতে রাখা প্রয়োজন
•    ভাঙ্গা দেয়ালে চাপা পড়লে, কোনো রকম নড়াচড়া করবেন না এবং শ্বাস নালিতে যাতে ধুলাবালি ঢুকতে না পারে সেজন্য যথা সম্ভব নাক-মুখ হাত দিয়ে ঢেকে রাখতে হবে। আর উদ্ধার কর্মীদের খবর দেয়ার চেষ্টা করতে হবে।

বিশেষজ্ঞদের মতে বাংলাদেশে রিখটার স্কেল ৬.৯ মাত্রায় ভূমিকম্প হলে শুধুমাত্র রাজধানী ঢাকায়ই ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির সম্ভাবনা রয়েছে।

বিপদে আতঙ্কিত না হয়ে মাথা ঠাণ্ডা রেখে নিরাপদ থাকার চেষ্টা করি।

print