পরকীয়ায় বাধা দেয়ায় শাশুড়িকে বালিশ চাপা দিয়ে শ্বাসরোধে হত্যার চেষ্টা করেছেন গৃহবধূ ফাতেমা আক্তারের (২০)। এ ঘটনায় গ্রামবাসী ওই গৃহবধূকে পিটুনি দিয়ে ফরিদগঞ্জ থানা পুলিশে সোপর্দ করেছে।

এ ঘটনায় শুক্রবার আহত খতেজা বেগম (৫৫) পুত্রবধূ ফাতেমা আক্তারের বিরুদ্ধে ফরিদগঞ্জ থানায় মামলা করেছেন।

গুরুতর আহত খতেজা বেগমকে রায়পুর সরকারি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

শুক্রবার আহত খতেজা বেগম  জানান, প্রায় তিন মাস আগে তার সৌদী প্রবাসী ছেলে রুবেল হোসেনের (৩২) সঙ্গে রায়পুর পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডের দক্ষিণ কেরোয়া গ্রামের ফারুক হোসেনের মেয়ে ফাতেমা আক্তারের বিয়ে হয়। বিয়ের এক মাস পরই রুবেল বিদেশ চলে যায়। সেই থেকেই পুত্রবধূ পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়ে। ঘটনার দিন মোবাইলে ফাতেমা তার প্রেমিকের সঙ্গে কথা বললে তিনি বাধা দেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ফাতেমা তাকে কামড়ে ও বালিশ চাপা দিয়ে হত্যা চেষ্টা করে।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে গৃহবধূ ফাতেমা আক্তার জানান, তার বিরুদ্ধে পরকীয়ার অভিযোগ মিথ্যা। বাবার বাড়িতে যেতে না দেয়ায় শাশুড়ির সঙ্গে তার ঝগড়া হয়। এ সময় ধস্তাধস্তিতে তারা শাশুড়ি আহত হন। তাকে মিথ্যা অপবাদ দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করা হয়েছে।

print