গত জুলাইয়ের শুরু থেকে এখন পর্যন্ত স্পেনজুরে ষাঁড়ের গুঁতো খেয়ে প্রাণ হারিয়েছেন কমপক্ষে সাতজন। এদের মধ্যে গত সপ্তাহেই মারা গেছেন চারজন। জুলাই মাসের শুরু থেকে স্পেনে মানুষের সঙ্গে ষাঁড়ের লড়াইয়ের এক জাঁকজঁমক উৎসব চলছিল। খবর বিবিসি’র।

মানুষ ও ষাঁড়ের মধ্যেকার লড়াইয়ের জন্য নির্ধারিত জায়গা ছেড়ে খোলা রাস্তায় ছুটে ও তেড়ে আসা ক্ষিপ্ত ষাঁড়ের লম্বা লম্বা শিংয়ের গুতোয় এসব ব্যক্তির মৃত্যু হয় বলে বিবিসির এক প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়। এইটুকু সময়ে ব্যবধানে ষাঁড়ের গুঁতো খেয়ে এতগুলো মানুষের মৃত্যুকে বেশ অস্বাভাবিকই বলছেন স্পেনবাসীরা।

নিহতদের মধ্যে স্পেনের উত্তর মাদ্রিদের ভাল্লাদোলিদ শহরের নিকটবর্তী পেনাফিয়েল শহরের একজন ৩৬ বছর বয়সী কাউন্সিলরও রয়েছেন। পেনাফিলের উত্তরে নাভারা শহরের লেরিনের ১৮ বছর বয়সী এক তরুণ তার পেটে ষাঁড়ের গুঁতো খেয়ে মৃত্যুবরণ করেন। এছাড়া ভ্যালেন্সিয়া, মার্সিয়া, টোলেদো, ক্যাসেলোন এবং আলিসানতোতে ষাঁড়ের লড়াই চলাকালীন আরও কয়েকজন মৃত্যুবরণ করেন।

দেশটির এল দিয়ারিও নিউজের ওয়েবসাইটে বলা হয়, স্পেনে প্রতি বছরের ন্যায় চলতি বছরও প্রায় দুই হাজার স্থানে মানুষ ও ষাঁড়ের লড়াইয়ের উৎসব অনুষ্ঠিত হয়। সাম্প্রতিক সময়ে এর সংখ্যাটা অবশ্য কমতে শুরু করছে। সর্ব প্রথম দেশটির ক্যানারি দ্বীপপূঞ্জে এই সংস্কৃতিকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়। ইতিমধ্যে কাতালোনিয়া প্রদেশেও মানুষ ও ষাঁড়ের লড়াই বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

print