চিত্রনায়ক মান্নার অকালপ্রয়াণে অনিশ্চয়তার মুখে পড়ে তার অসমাপ্ত চলচ্চিত্র ‘লীলামন্থন’। তবু ডামি চরিত্র ব্যবহার করে ছবিটির কাজ শেষ করেন পরিচালক জাহিদ হোসেন।  কিন্তু এরপরও অনিশ্চয়তা ছবিটির পেছন ছাড়েনি। তাই সেন্সর বোর্ড আর মুক্তিযোদ্ধা সংসদের আপত্তির মুখে সম্প্রতি ছবির কিছু অংশ কর্তন করে আবারো সেন্সর বোর্ডে জামা দেয়া হচ্ছে। সবকিছু ঠিক থাকলে, আসছে ডিসেম্বরেই মান্নার শেষ ছবি দেখতে পাবেন দর্শকরা।

২০১১ সালে প্রয়াত চিত্রনায়ক মান্নার শেষ ছবি ‘লীলামন্থন’ সেন্সরে জমা দেওয়া হয়। কিন্তু তখন মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক এই ছবিতে দুইটি আপত্তিকর দৃশ্য ও স্পর্শকাতর সংলাপ থাকার অভিযোগে আটকে দেয় সেন্সর বোর্ড। একপর্যায়ে অধিকরতর যাচাই বাছাইয়ের কথা বলে, ছবিটিকে মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কাছে পাঠানো হয়। জানানো হয়, মুক্তিযোদ্ধোদের এই সংগঠনের ছাড়পত্র মিললেই, ছবিটিকে সেন্সর সার্টিফিকেট দেয়া হবে। পরিচালকও আশায় বুক বেঁধে মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কাছে ছবিটি দেখে প্রযোজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আবেদন করেন। জানা যায়, শুরু থেকেই বিষয়টিকে গুরুত্বের সঙ্গে নেয়নি মুক্তিযোদ্ধা সংসদের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তারা। বারবার তাগাদা দেয়ার পরও,  ছবিটি দেখে ছাড়পত্রের ব্যবস্থা করতে প্রায় চার বছর লেগে যায় তাদের।

এ প্রসঙ্গে পরিচালক জাহিদ হোসেন বলেন, ‘একবার দুইবার নয়, দশবারের বেশি তাদের তাগাদা দিয়ে চিঠি দিয়েছি। কিন্তু ছোট্ট এই কাজটি করতে তাদের চার বছর লেগে গিয়েছে।  মুক্তিযুদ্ধের সরকার যখন ক্ষমতায়, তখন  মুক্তিযোদ্ধা সংসদের এমন কান্ড মেনে নেয়া যায় না।’

অনেক চেষ্টা তদবিরের পর চলতি বছরের শুরুতে মুক্তিযোদ্ধা সংসদের প্রতিনিধিরা ছবিটি দেখেন। কিন্তু এবার ছবিটির বিরুদ্ধে অভিযোগ আনেন, এতে যৌনকর্মীদেরকে দেখানোর মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধকে খাটো করা হয়েছে। তাদের মতে, মুক্তিযুদ্ধের মতো পবিত্র একটি বিষয়ের সঙ্গে যৌনকর্মীদের উপস্থাপন একেবারেই বেমানান। অবশেষে পরিচালক নির্দিষ্ট দৃশ্য ও সংলাপ কর্তনের পর আবারো সেন্সরে ছবিটি জমা দিতে যাচ্ছেন।

এ বিষয়ে পরিচালক বলেন, ‘মুক্তিযোদ্ধা সংসদের প্রতিনিধিরা ছবিটির বিষয়বস্তু নিয়ে প্রসংসা করলেও, যৌনকর্মীদের উপস্থাপন নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। কিন্তু আমার কথা হচ্ছে, যৌনকর্মীরা কি মুক্তিযুদ্ধের অংশ না?’

সব কিছু ঠিক থাকছে আগামী সপ্তাহেই পুনরায় সেন্সরে যাচ্ছে ‘লীলামন্থন’। এর পরপরই ছবিটি মুক্তির তোড়জোড় শুরু হবে। আগামী ১৬ ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবসের দিন ছবিটি দেশব্যাপী মুক্তি দেয়ার ব্যাপারে আশাবাদি পরিচালক।

উল্লেখ্য, জাহিদ হোসেন ও খোরশেদ আলম খসরুর যৌথ পরিচালনায় ‘লীলামন্থন’ এর কাজ শুরু হয় প্রায় ১০ বছর আগে। ছবির মাত্র ১৫ ভাগ কাজ বাকি রেখে ২০০৮ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি মারা যান চিত্রনায়ক মান্না। সে হিসেবে এটিই তার শেষ ছবি। এতে আরও অভিনয় করেছেন- মৌসুমী, পপি, শাহনূর, মুক্তি, দিঘি, বাপ্পারাজ, আলীরাজ, আনোয়ারা, শহিদুল আলম সাচ্চু, মিশা সওদাগরসহ অনেকে।

print