রাজশাহী: নাটোর বাস মালিক সমিতির নেতাদের বাধায় অনির্দিষ্টকালের জন্য রাজশাহী-নাটোর রুটে বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে।

বুধবার (২৯ জুন) সকালে চাঁপাইনবাবগঞ্জের একটি সাতক্ষীরাগামী বাস নাটোর থেকে ফেরত পাঠিয়ে দিলে এর প্রতিবাদে দুপুর থেকে ওই রুটের সব ধরনের লোকাল বাস বন্ধ করে দেন রাজশাহী পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের নেতারা।

ফলে রাজশাহী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে ঢাকাগামী লোকাল বাসগুলোও বন্ধ রয়েছে।

রাজশাহী পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের দপ্তর সম্পাদক মমিনুল ইসলাম বাংলানিউজকে জানান, রাজশাহী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে যেসব লোকাল বাস ঢাকায় যায় সেসব বাসগুলোকে নাটোরে আটকে দেওয়া হয়। পরে বাস প্রতি ৬০০ টাকা করে আদায় করে সকাল ১১টার দিকে বাসগুলোকে ছাড়া হয়।

আবার ঢাকা থেকে রাজশাহী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জগামী বাসগুলোকেও নাটোরে থামিয়ে ৩০০ টাকা করে আদায় করা হয়। এসব বাসে কোনো যাত্রীও উঠাতে দেওয়া হয় না।

তিনি জানান, বুধবার সকালে চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে একটি বাস সাতক্ষীরা যাচ্ছিল। নাটোরে ওই বাসটিকেও আটকে দেওয়া হয়। এ সময় বাসের চালক চাঁদা দিতে রাজি না হলে বাসটিকে নাটোর থেকে ফেরত পাঠিয়ে দেওয়া হয়। এর প্রতিবাদে তারা রাজশাহী-নাটোর রুটের সব বাস ও রাজশাহী-ঢাকা রুটের লোকাল বাস চলাচল বন্ধ করে দেন।

রাজশাহী পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মাহতাব আলী বাংলানিউজকে জানান, বাস বন্ধ করে দেওয়ার পর প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিষয়টি জানতে চাওয়া হয়েছে। তারা এ ব্যাখা দিয়েছেন। উদ্ভুত সমস্যা নিরসনে এখন সব দায়িত্ব প্রশাসনের। সমস্যা সমাধান না হওয়া পর্যন্ত বাস বন্ধ রাখা হবে বলেও জানান তিনি।

এ ব্যাপারে নাটোর পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মজিবর রহমান বলেন, রাজশাহীর বাসের কারণে নাটোরের ঢাকাগামী বাসগুলো যাত্রী সংকটে পড়ে লোকসান গুণে। এ জন্য রাজশাহীর বাসগুলোকে সকাল ১১টার পর ঢাকা যাওয়ার জন্য বলা হয়।

এদিকে, ঈদের আগমুহূর্তে বাস চলাচল বন্ধের কারণে ভোগান্তিতে পড়েছেন যাত্রীরা। যাত্রীরা অভিযোগ করেন, রাজশাহী-নাটোর রুটের বাস বন্ধ থাকায় পাবনা ও বগুড়ার বাসে চড়ে তাদের নাটোর যেতে হচ্ছে। এ কারণে ওই দু’রুটের বাসের টিকিটেরও সঙ্কট দেখা দিয়েছে।

print