মঠবাড়িয়া প্রতিনিধি : পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় চেতনা নাশক ঔষধ খাইয়ে সৌদি প্রবাসীর স্ত্রী দুই সন্তানের জননীকে গণধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় সোমবার রাতে ধর্ষিতার বাবা বাদী হয়ে ৩ জনকে আসামী করে মঠবাড়িয়া থানায় মামলা দায়ের করে। ধর্ষণের শিকার প্রবাসীর স্ত্রীর জ্ঞান ফিরে এলে ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য মঙ্গলবার দুপুরে পিরোজপুর সিভিল সার্জন কার্যালয়ে পাঠিয়েছে থানা পুলিশ।
মামলা সূত্রে জানা যায়, উপজেলার উদয়তারা বুড়িরচর গ্রামের দেলোয়ারের পুত্র বখাটে নাঈম (২০), আব্বাসের পুত্র রাসেল (২৪), ইসমাইল খানের পুত্র নিজাম (২৮) ওই গৃহবধূকে দীর্ঘদিন ধরে কু-প্রস্তাব দিয়ে উত্ত্যক্ত করে আসছিল। পরে কৌশলে ওই লম্পটরা খাবারের সাথে চেতনা নাশক ঔষধ মিশিয়ে রাখে। পরে ওই খাবার খেয়ে প্রবাসীর স্ত্রী অচেতন হয়ে পড়ে। এদিকে শিশু সন্তান দু’টি পাশের বাড়ি টিভি দেখতে গেলে এ সুযোগে ওঁৎ পেতে থাকা ওই তিন বখাটেসহ অজ্ঞাত আরও দুই তিনজন গৃহবধূকে পালাক্রমে ধর্ষণ করে পালিয়ে যায়। ঘটনার পরের দিন রোববার সকালে অজ্ঞান অবস্থায় এলাকাবাসী ওই গৃহবধূকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। তিনদিন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকার পর সোমবার তার জ্ঞান ফেরে।
মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ খন্দকার মোস্তাফিজুর রহমান জানান, ওই গৃহবধূর ডাক্তারী পরীক্ষা মঙ্গলবার বিকেলে সম্পন্ন হয়েছে। ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

print