নাজিরপুর প্রতিনিধি: পিরোজপুরের নাজিরপুরে এক মাদ্রাসা ছাত্রকে চুরির অপবাদ দিয়ে শারীরিক নির্যাতন করার প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে ওই প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। নির্যাতনকারী স্থানীয় ইউপি সদস্য ও গ্রাম পুলিশের দৃষ্টান্তমূলক শস্তি দাবী করেছেন শিক্ষক ও শিক্ষার্থীবৃন্দ। নির্যাতনের শিকার ওই মাদ্রাসা ছাত্র গত রবিবার থেকে নাজিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছে।
গতকাল মঙ্গলবার বেলা ১১টায় উপজেলার লেবুজিলবুনিয়া ফাজিল মাদ্রাসার ৭ম শ্রেণীর ছাত্র মাহাবুবকে (১৩) চুরির অপবাদ দিয়ে সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের সদ্য নির্বাচিত ইউপি সদস্য সাইফুল ইসলাম ও গ্রাম পুলিশ মোজাম্মেল হক কর্তৃক শারীরিক নির্যাতন করার প্রতিবাদে মাদ্রাসা কমপ্লেক্সের ভেতরে এ মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়। মানববন্ধনে প্রায় তিন শতাধিক শিক্ষার্থীসহ ওই প্রতিষ্ঠানে কর্মরত শিক্ষকগণ উপস্থিত ছিলেন। বক্তারা অবিলম্বে ঘটনা তদন্ত করে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহবান জানান।
উল্লেখ্য, গত শনিবার লেবুজিলবুনিয়া অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্য আলাউল হকের বসত ঘর থেকে ১৮ হাজার ৫শ’ টাকা চুরি হয়। পরবর্তীতে ওই গ্রামে নানা বাড়ীতে বেড়াতে আসা উপজেলার সোনাপুর গ্রামের আবুল কালামের ছেলে ইমনের (৮) নিকট থেকে স্থানীয়রা ওই টাকা উদ্ধার করে। প্রথমে ইমন ওই টাকা রাস্তায় কুড়িয়ে পেয়েছে বলে দাবী করে এবং মাহাবুবও তার সাথে ছিল বলে জানায়। এ ঘটনা শুনে ইউপি সদস্য সাইফুল ইসলাম ও গ্রাম পুলিশ মোজাম্মেল হক ওই দিন সন্ধ্যার দিকে মাদ্রাসা ছাত্র মাহবুবের বাড়ীতে গিয়ে তার কাছে স্বীকারোক্তি আদায় করার জন্য তাকে শারীরিক নির্যাতন করে।

print