আজ মঙ্গলবার একনেক বৈঠকে রাজধানীর গুলশান, ধানমণ্ডি ও মোহাম্মদপুরের ২০টি পরিত্যক্ত বাড়িতে সরকারি চাকরিজীবীদের ৩৯৮টি ফ্ল্যাট নির্মাণ প্রকল্প অনুমোদনের জন্য উঠানো হবে।

পরিকল্পনা কমিশন সূত্র জানিয়েছে, রজধানীর আগাঁরগায়ে এনইসি সম্মেলন কক্ষে একনেক বৈঠকে এ প্রকল্প অনুমোদন দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রকল্পটি বাস্তবায়নে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে ৩৬৬ কোটি ৫৩ লাখ ৫০ হাজার টাকা। এ প্রকল্প সরকারের অর্থায়নে ব্যস্তব্যায়ন হবে।

প্রকল্প অনুযায়ী, গুলশানে ১টি ১০তলা ভবনে ১৮টি ফ্ল্যাট, ধানমণ্ডিতে ১টি ১৩তলা ভবনে ৪৮টি ফ্ল্যাট, মোহাম্মদপুরে ১টি ১৩তলা ভবনে ৩৬টি ফ্ল্যাট নির্মাণ করা হবে। এছাড়া ৫হাজার ১৮৩ দশমিক ৯৬ বর্গমিটার অভ্যন্তরীণ রাস্তা, ৩ হাজার ৫৭৪ দশমিক ৬১ রানিং মিটার সীমানা প্রাচীর নির্মাণ এবং পানি সরবরাহ ও বিদ্যুতায়ন করা হবে।

সূত্র জানিয়েছে, ঢাকা শহরে কর্মরত কর্মকর্তা কর্মচারীর সংখ্যা ১ লাখ ৪৮ হাজার ৯১৫ জন, এরমধ্যে মাত্র ৯ শতাংশ অর্থাৎ ১ হাজার ৩৫২টি সরকারি আবাসনের ব্যবস্থা আছে। এর ফলে অনেক সরকারি চাকুরিজীবী ভোগান্তিতে রয়েছেন।

সরকারি আবাসন পরিদফরের পরিকল্পনা অনুযায়ী, ঢাকা শহরে সরকারি আবাসন সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে ফ্ল্যাট সংখ্যা বিদ্যমান ১ হাজার ৩৫২টি হতে স্বল্প মেয়াদে ২০১৫ সালের মধ্যে ১৬ হাজার ৩২০টিতে, মধ্য মেয়াদে ২০১৭ সালের মধ্যে ১৬ হাজার ৯৬৮টিতে এবং দীর্ঘ মেয়াদে ২০১৯ সালের মধ্যে ১৮ হাজার ২৭৬টিতে উন্নীতকরণের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।পরিত্যক্ত বাড়িগুলোতে অধিক সংখ্যক আবাসিক ভবন নির্মাণের মাধ্যমে সরকারি কর্মকর্তা কর্মচারীদের আবাসন সমস্যার কিছুটা সমাধান করা সম্ভব হবে।

গৃহায়ন ও গুপূর্ত মন্ত্রণালয় থেকে ঢাকার গুলশান, ধানমন্ডি ও মোহাম্মদপুরের ২৩টি পরিত্যক্ত বাড়িতে ৫১৫টি ফ্ল্যাট নির্মাণের জন্য ৪৭১ কোটি ৪২ লাখ ১৯ হাজার টাকা প্রাক্কলিত ব্যয়ে একটি প্রকল্প অনুমোদনের জন্য পরিকল্পনা কমিশনে প্রেরণ করা হয়।

প্রকল্পটির উপর ২০১৫ সালের ১৮ অক্টোবর প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটি (পিইসি) সভা অনুষ্ঠিত হয়। মোহাম্মদপুরে পরিত্যক্ত বাড়ির ৪টি প্লটের অন্তর্ভুক্তিতে জটিলতা থাকায় পিইসি সভায় ২টি ভবন বাদ দেওয়ার সুপারিশ করা হয়।

উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাবে (ডিপিপি) পিইসি সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ২টি ভবন এবং বাড়ির সামনে রাস্তার প্রশস্ততা কম থাকায় অনুমোদন করা সম্ভব হয়নি বিধায মোহাম্মদপুরে আরও ১টি ভবন প্রকল্প হতে বাদ দিয়ে মোট ২০টি ভবনে ৩৬৬ কোটি ৫৩ লাখ ৫০ হাজার টাকা প্রাক্কলিত ব্যয়ে ৩৯৮টি ফ্ল্যাট নির্মাণের প্রস্তাব করা হয়েছে।

print