হাসিবুল হাসান : প্রথমবারের মতো পিরোজপুর জেলায় অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে জেলা ভিত্তিক আঞ্চলিক ইজতেমা। পূর্র্ব ঘোষণা অনুযায়ী ফেব্রুয়ারি মাসের ১৬, ১৭ ও ১৮  তারিখে পিরোজপুর সদর উপজেলার পৌর এলাকার আলামকাঠীর (লোপা ব্রিকস্) বিশাল ফসলি মাঠকে আঞ্চলিক ইজতেমার ময়দান হিসেবে নির্ধারণ করা হয়েছে।      গত ১৩ জানুয়ারী শুক্রবার থেকে চলছে মাঠের প্রস্তুতি। এখানে  ২ থেকে ৩ লক্ষাধিক বেশি মুসল্লির আগমন হবে বলে আশা করা হচ্ছে। ইজতেমায় বিভিন্ন দেশের এবং বাংলাদেশের প্রায় ১০/১৫ জন মেহমান বয়ান করবেন বলে জানিয়েছে ইজতেমা কতৃপক্ষ।
পিরোজপুর তাবলিক জামাতের জেলা জিম্মাদার মো: নূরুল হক  বলেন ,  তাবলিগ জামাত ও স্থানীয় প্রায় সহা¯্রাধিক স্বেচ্ছাসেবী বিভিন্ন দলে বিভক্ত হয়ে বিরতিহীন ভাবে মাঠের নানা দিক প্রস্তুতি করছেন। বর্তমানে বিভিন্ন দলে বিভক্ত হয়ে  মেহমান ও মুসল্লিদের জন্য তাককিল কামরা, তাঁবু, টয়লেট, পানির লাইন, ভিতরের রাস্তা এবং শব্দ যন্ত্র স্থাপনের কাজ করছেন। ইতোমধ্যে তাঁবুর জন্য কয়েক হাজার বাঁশ মাঠে স্থাপন করা হয়েছে। বিদেশী মুসল্লিদের জন্য তৈরি করা হয়েছে টিনের ছাউনী দেয়া কামরা।
আঞ্চলিক ইজতেমার আয়োজকরা  বলেন , মুসল্লিদের স্থান সঙ্কুলান না হওয়ায় ২০১১ সাল থেকে দুই পর্বের বিশ্ব ইজতেমা শুরুর পর ২০১৬ সালে এ পরিবর্তন আনা হলো। সে নিয়মানুযায়ী প্রতি বছর দেশের ৩২টি জেলার মুসল্লিদের নিয়ে টঙ্গী তুরাগ তীরে দুই ধাপে অনুষ্ঠিত হবে ইজতেমা। বাকি ৩২টি তাদের নিজ নিজ জেলায় আঞ্চলিকভাবে ইজতেমা করবে। চলতি বছরে তুরাগ তীরে ইজতেমায় অংশ গ্রহনকারীরা পরের বছর নিজ নিজ জেলায় ইজতেমা করবে। তবে বিদেশি মুসল্লিরা প্রতি বছর বিশ্ব ইজতেমায় অংশ নিতে পারবেন।

print