নাজিরপুর প্রতিনিধি: পিরোজপুরের নাজিরপুরে ইউপি চেয়ারম্যানের সহযোগিতায় একটি হিন্দু পরিবারের কোটি টাকা মূল্যের সম্পত্তি দখল করেছে ভূমিদস্যুরা। বাড়াবাড়ি না করে এ দেশ ছেড়ে ভারতে চলে যাবারও হুমকি দেয়া হয় ওই সংখ্যালঘু পরিবারটিকে। এ ঘটনায় সোমবার বেলা ১টায় নাজিরপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে ওই সংখ্যালঘু পরিবারের সদস্যরা সংবাদ সম্মেলন করে অভিযোগ করেন।
সংবাদ সম্মেলনে উপজেলার দক্ষিণ লেবুজিলবুনিয়া গ্রামের মৃত সুধীর কুমার গাইনের ছেলে সমরেশ গাইন লিখিত বক্তব্যে বলেন, তার পিতা বিগত ৭ বছর পূর্বে আকষ্মিকভাবে মৃত্যুর পরে তিনি লোকমুখে জানতে পারেন উপজেলার দেউলবাড়ী দোবড়া ইউনিয়নের গাওখালী স্কুল অ্যান্ড কলেজ সংলগ্ন এলাকায় তাদের প্রায় কোটি টাকা মূল্যের ২ একর সম্পত্তি রয়েছে। ওই সম্পত্তি অবৈধভাবে স্থানীয় হানিফ ডাকুয়া, ফজলুল হক, কবির হোসেন মাষ্টার, বারেক সরদার, সুশীল দেউরী ভোগ-দখল করছে। অবশিষ্ট কিছু সম্পত্তি পরিত্যাক্তবস্থায় রয়েছে। তিনি পৈত্রিক সম্পত্তি উদ্ধার ও শন্তিপূর্ণ ভোগদখলের জন্য সংশ্লিষ্ট দেউলবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ওয়ালী উল্লাহ, ইউপি সদস্য আ. ছালাম মাঝি ও ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার হাবিবুর রহমানের দ্বারস্থ হন। তারা আজ-কাল বলে ভূমিদস্যুদের পক্ষ অবলম্বন করে কয়েক-দফা লোক দেখানো শালিস বৈঠকও করেন। এক পর্যায়ে তিনি জানতে পরেন সম্পত্তি উদ্ধারের জন্য যাদের পেছনে দিনের পর দিন ঘুরছেন তারাই দখলকারীদের নিকট অর্থ গ্রহণপূর্বক অবৈধভাবে ভোগ দখলে সহায়তাসহ তাদের পক্ষালম্বন এবং অবশিষ্ট পরিত্যাক্ত সম্পত্তি নিজেরা ভোগ-দখলের পায়তারা করছে।
সম্প্রতি তিনি তার পরিত্যাক্ত সম্পত্তিতে বালু ভরাট দেয়ার জন্য লেবার দ্বারা মাটি কেটে রিং-ভেরী দেন। এর ২/৩ দিন পরে ইউপি চেয়ারম্যান ওয়ালী উল্লাহ ও ইউপি সদস্য আ. ছালামের সহায়তায় তার পরিত্যাক্ত জায়গার উপর হানিফ ডাকুয়া একটি টিনের ঘর উত্তোলন করে। তখন ঘটনাস্থলে গেলে বিবাদীরা তাকে ওই সম্পত্তির কাছে আসলে খুন-জখমের হুমকি দেয়। এ ঘটনার পরেও দারিদ্র্যতার কারণে আইনের আশ্রয় নিতে ব্যর্থ হয়ে বিষয়টি সমাধান করে দেয়ার জন্য পুনরায় ইউপি চেয়ারম্যান ওয়ালী উল্লাহর কাছে গেলে তিনি ইউপি সদস্য আ. ছালাম মাঝির সাথে যোগাযোগ করে তার কথা অনুযায়ী কাজ করার পরামর্শ দেন। চেয়ারম্যানের কথায় আশ^স্থ হয়ে তিনি ইউপি সদস্য ছালাম মাঝির সাথে যোগাযোগ করলে তাদের ১০ লাখ টাকা দিলে কোন আইন আদালত ছাড়াই সম্পত্তি উদ্ধারের ব্যবস্থা করবেন বলে জানান। তা না হলে ওই সম্পত্তির আশা ছেড়ে দিয়ে এ দেশ ছেড়ে ভারতে চলে যেতে বলেন।
গত রবিবার সকাল ১০ টার দিকে উল্লেখিত ভূমিদস্যুরা তার অবশিষ্ট পরিত্যাক্ত জায়গায় আরেকটি ঘর উত্তোলন শুরু করলে তিনি নাজিরপুর প্রেসক্লাবের সভাপতিকে মুঠোফোনে জানালে কয়েকজন সাংবাদিক ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। সাংবাদিকদের খবর দেয়ায় ভূমিদস্যুরা সাংবাদিকদের সামনেই আমাকে হত্যার চেষ্টা করে। তখন অবৈধভাবে ঘর উত্তোলনের চিত্র সাংবাদিকরা ধারণ করতে গেলে তারা সাংবাদিকদের উপর চড়াও হয়ে তাদের একটি ক্যামেরা ছিনিয়ে নেয়। এক পর্যায়ে স্থানীয় লোকজন আসিয়া পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন।

print