এস এম মুন্না, নাজিরপুর প্রতিনিধি: আবারও অশান্ত হয়ে ওঠেছে পিরোজপুরের নাজিরপুর উপজেলার মালিখালী ইউনিয়ন। ৬ বছর পর আবার বংশীয় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের দেয়া আগুনে ৫টি বসত ঘর ভষ্মিভূত হয়েছে। এসময় প্রতিপক্ষরা ওই ঘরের মূল্যবান মালামাল লুটপাট করেছে বলে অভিযোগ করেছেন ক্ষতিগ্রস্থরা। এ ঘটনার সময় ওই ঘরে থাকা নারী-পুরুষসহ ১০ জন আহত হয়েছেন। গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া ফায়ার সার্ভিস এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। নাজিরপুর থানার ওসিসহ পিরোজপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবুল কালাম আজাদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।
সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, ২০০৪ সাল থেকে পিরোজপুরের নাজিরপুর উপজেলার মালিখালী ইউনিয়নের পেনাখালী গ্রামে বংশীয় আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দাড়িয়া, হাওলাদার ও শেখ বংশের মধ্যে বিরোধ শুরু হয়। ওই বিরোধের জের ধরে ২০১১ সালের নভেম্বর মাসের প্রথম দিকে পেনাখালী বাজারে দুই বংশের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়। এর পরের দিন হাওলাদার বংশের লোকজন দাড়িয়া বংশের মিজান দাড়িয়া নামের একজনকে কুপিয়ে জখম করে এবং ওই বছরের ৮ নভেম্বর রাজাকার পুত্র ও স্থানীয় এমপি একেএমএ আউয়ালের আশির্বাদপুষ্ট টিপু সুলতানের নেতৃত্বে তার সন্ত্রাসী বাহিনী দাড়িয়া বংশের বাড়ী-ঘরে হামলা চালায়। রক্তক্ষয়ী এ সংঘর্ষে ইয়াহিয়া দাড়িয়া ও বাবুল শেখ নামে দুজন নিহত হয় এবং দেড় শতাধিক আহত হয়। এ সময় টিপু বাহিনীর সন্ত্রাসীরা পেট্রোল ঢেলে আগুন দিয়ে জালিয়ে দেয় দাড়িয়া বংশের শতাধিক বসতঘর। ওই ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্থরা গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া থানায় ইয়াহিয়া হত্যা মামলাসহ নাজিরপুর থানায় মোট ১০টি মামলা করে। যার মধ্যে হত্যা মামলাসহ ৯টি মামলার প্রধান আসামী টিপু সুলতান। এছাড়া টিপু সুলতানের সহযোগী মালিখালী ইউনিয়নের ঝনঝনিয়া গ্রামের দেলোয়ার শেখের ছেলে মুজাহিদ শেখ, আবু সাঈদ শেখ ও রাজিব শেখ, মৃত বেলায়েত শেখের ছেলে হিটু শেখ এবং মিঠারকুল গ্রামের আবু বকর হাওলাদারের ছেলে নুরনবী হাওলাদারও বিভিন্ন মামলার আসামী।
কিন্তু টিপু সুলতান স্থানীয় এমপি আউয়ালের ঘনিষ্টজন হওয়ায় রহস্যজনক কারণে প্রশাসনের পক্ষ থেকে টিপুর বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি এবং পুরস্কার স্বরূপ রাজাকার পুত্র টিপু সুলতানকে নাজিরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ও তার বড় ভাই শাহজাহান শেখকে মালিখালী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি করা হয়। এর পর থেকে টিপু সুলতানসহ তার বাহিনীর সদস্যরা আরও বেপরোয়া হয়ে ওঠে। টিপুর নেতৃত্বে প্রশাসনকে ম্যানেজ করে এলাকায় মাদক ব্যবসা, চাঁদাবাজীসহ বিভিন্ন অবৈধ কর্মকান্ড শুরু হয়। এর প্রতিবাদ করতে গিয়ে মুক্তিযোদ্ধা মহিউদ্দিন মোল্লার ছেলে নাজমুল হক লাল্টু ও সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমানসহ অনেক নিরহ মানুষ মিথ্যা মামলার শিকার হয়ে এলাকা ছাড়তে বাধ্য হয়।
গত বছরের মার্চ মাসে অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে টিপু সুলতান মালিখালী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন চেয়ে না পেয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে আনারস মার্কা প্রতীক নিয়ে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর বিরুদ্ধে নির্বাচন করেন। ইয়াহিয়া হত্যাসহ একাধিক মামলায় তার বিরুদ্ধে নাজিরপুর থানায় গ্রেফতারী পরোয়ানা মুলতবী থাকা সত্বেও প্রকাশ্যে প্রশাসনের সামনে নির্বাচনী প্রচারনায় অংশগ্রহণ করেন। তবে ওই নির্বাচনে রাজাকারপুত্র টিপু নৌকা মার্কার প্রার্থীর কাছে বিপুল ভোটে পরাজিত হন। নির্বাচনে পরাজিত হওয়ার পর টিপু সুলতানকে এলাকায় দেখা না গেলেও পুলিশের খাতায় পলাতক টিপু সুলতানকে পুলিশের সামনেই স্থানীয় এমপি একেএমএ আউয়ালের নাজিরপুরের সকল প্রোগ্রামে অংশগ্রহণ করতে দেখা যায়।
এক পর্যায়ে টিপু বাহিনীর নানা অত্যাচারে এবং মালিখালী ইউনিয়নকে মাদকের সর্গরাজ্যে পরিনত করায় ওই ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান সুমন মন্ডল মিঠু নেতৃত্বে সাধারণ মানুষ টিপু বাহিনীর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলে এবং মালিখালী ইউনিয়নকে মাদকমুক্ত ঘোষণা করেন। জনতার প্রতিরোধের মুখে টিপু বাহিনী এলাকা ছাড়তে বাধ্য হয়। মালিখালী ইউনিয়নকে মাদকমুক্ত করার আন্দোলনের অন্যতম সংগঠক ওই ইউনিয়নের মিঠারকুল গ্রামের মৃত মালেক হাওলাদারের ছেলে হাজী নিজাম হাওলাদার (৫০) চলতি বছরের ৮ ফেব্রুয়ারী সকালে ওই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল আমীন শেখ ও যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সুজন মোল্লাকে সাথে নিয়ে মোটর সাইকেলযোগে উপজেলার মাটিভাঙ্গা যাচ্ছিলেন। সকাল ৮টার দিকে তারা মাটিভাঙ্গা ইউনিয়নের বইবুনিয়া নামক স্থানে পৌঁছলে পূর্ব থেকে ওৎপেতে থাকা টিপু সুলতানের সহযোগী মালিখালী ইউনিয়নের ঝনঝনিয়া গ্রামের দেলোয়ার শেখের ছেলে মুজাহিদ শেখ, আবু সাঈদ শেখ ও রাজিব শেখ, মৃত বেলায়েত শেখের ছেলে হিটু শেখ এবং মিঠারকুল গ্রামের আবু বকর হাওলাদারের ছেলে নুরনবী তাদের মোটর সাইকেলের গতিরোধ করে তাদের মারধর করে। এক পর্যায়ে তারা নিজামকে হত্যার উদ্দেশ্যে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে তার দুইপা ভেঙ্গে দেয় এবং মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে গুরুতর জখম করে। এ ঘটনার পর থেকে টিপু বাহিনীর সদস্যরা পলাতক ছিল।
বিগত প্রায় ১ বছর পর গত সোমবার রাতে সন্ত্রাসী টিপু বাহিনীর প্রধান সহযোগী মুজাহিদ শেখসহ অন্যান্যরা এলাকায় প্রবেশ করে তাদের বাড়ীতে অবস্থান করে। এ সংবাদ পেয়ে গতকাল মঙ্গলবার সকাল ৮টার দিকে দাড়িয়া বংশের নেতৃত্বদানকারী সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান বাবলু দাড়িয়া ও নজরুল দাড়িয়ার নেতৃত্বে ৪০/৫০ জন দেশীয় অস্ত্রসহ মুজাহিদ শেখের বাড়ি-ঘরে হামলাসহ অগ্নিসংযোগ ও লুটপাট করে বলে অভিযোগ করেন ক্ষতিগ্রস্থরা। এ সময় তাদের হামলায় মুজাহিদ শেখ, আবু সাঈদ শেখ, রাজিব শেখ, জাহাঙ্গীর ফকির, তারিকুল শেখ, তাজরুল হাওলাদার, নাজিম শেখ ও বাবু শেখ জখম হয়। তাদের দেয়া আগুনে দেলোয়ার শেখ, জাকির শেখ, দুলাল শেখ ও মুজাহিদ শেখের বসত ঘর ভষ্মিভূত হয় এবং ঘরে থাকা বিপুল পরিমাণ ধানসহ মূল্যবান মালামাল পুড়ে যায়।
অভিযোগের বিষয়ে জানতে বাবলু দাড়িয়া ও নজরুল দাড়িয়ার মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।
টুঙ্গিপাড়া ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার শাহাদাৎ হোসেন বলেন, ‘ঘটনার সংবাদ পেয়ে সকাল ১০টার দিকে আমরা ঘটনাস্থলে পৌছে প্রায় ১ ঘন্টা চেষ্টা করে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হই।’
এ ব্যাপারে নাজিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. হাবিবুর রহমান বলেন, ‘দু’পক্ষের আদিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এ ঘটনা ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পরিস্থিতি এখন নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

print