স্বরূপকাঠী প্রতিনিধি: শিক্ষাবোর্ডের কোন প্রকার অনুমতি ছাড়াই নেছারাবাদে উপজেলা সদরের পাইলট মডেল মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে চলতি বছরে এস,এস,সি পাশ করা শিক্ষার্থীদের নিকট প্রশংসাপত্রের বিনিময়ে দেড়শ করে টাকা নেওয়া হচ্ছে। ওই বিদ্যালয় থেকে সদ্য এস,এস,সি পাশ করা শিক্ষার্থীরা কলেজে একাদশ শ্রেণীতে ভর্তির আব্যশক প্রংশসাপত্রের জন্য বিদ্যালয়ে দারস্থ হয়। বিদ্যালয়টির অফিস থেকে শিক্ষার্থী প্রতি বিনিময়ে ১৫০টাকা নিয়ে একটি রিসিভ দিয়ে প্রশংসাপত্র দিচ্ছে। বিদ্যালয় থেকে দেওয়া ওই রিসিভে বিদ্যালয়ের বিভিন্ন ফি, বেতনসহ নানা সার্ভিসের কথা উল্লেখ থাকলেও প্রশংসাপত্রের ফি এর কোন কথা উল্লেখ নেই। বিদ্যালয়ের করনিক রিসিভে বেতনের ঘরে ওই টাকা উল্লেখ করে লিখে ওই টাকা নিয়ে নিচ্ছে।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক স্বপন কুমার দত্ত বলেন, আমরা অনিয়ম কিছু করছিনা। রিসিভ দিয়ে ১৫০ টাকা রেখে প্রশংসাপত্র দিচ্ছি। প্রশংসাপত্র নিতে হলে দেড়শ টাকা দিতে হবে। পরবর্তীতে সার্টিফিকিটের নেওয়ার জন্য পূনরায় ওই বিদ্যালয় থেকে আবার শিক্ষার্থীদের কোন টাকা দিতে হবে কিনা জানতে চাইলে সে প্রশ্নের উত্তর এড়িয়ে প্রধান শিক্ষক আরো বলেন, রিসিভ ছাড়া কোন টাকা পয়সা নেওয়া হবেনা।
এ বিয়য়ে জানতে চাইলে, বরিশাল শিক্ষাবোর্ডের ডেপুটি কন্ট্্েরালার অরুন কুমার গাইন বলেন, প্রশংসাপত্রের জন্য কোন ফি প্রয়োজন নেই। তবে এজন্য কোন কোন বিদ্যালয় প্রশংসাপত্রের জন্য শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে দশ টাকা, বিশ টাকা নিয়ে থাকে। তবে বোর্ড থেকে এর কোন ‘ফি’ এর কথা বলা নেই। পরবর্তীতে বিষয়টি তিনি বোর্ডের স্কুল পরিদর্শক আবুল বাশার তালুকদার-কে বলতে বলেন। বাকিটা তিনি দেখবেন বলে এ কর্মকর্তা আশ্বস্ত করেন।
বিদ্যালয় পরিদর্শক আবুল বাশার তালুকদার বলেন, এবিষয়ে কেহ লিখিত অভিযোগ দিলে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যাবস্তা নেওয়া হবে।

print