উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে গুরুতর কিছু ঘটতে যাচ্ছে বলে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন জাতিসংঘে নিযুক্ত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত নিক্কি হ্যালি। জাপানের উপর দিয়ে প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে উত্তর কোরিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপের পর বুধবার এ শঙ্কা প্রকাশ করেছেন তিনি।

নিক্কি হ্যালি বলেন, ‘এটা একেবারেই অগ্রহণযোগ্য। তারা (উত্তর কোরিয়া) জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের প্রত্যেক নিষেধাজ্ঞা অমান্য করেছে। আমার মনে হচ্ছে গুরুতর কিছু ঘটতে যাচ্ছে।’ তবে কী ঘটতে যাচ্ছে, সে ব্যাপারে নির্দিষ্ট করে কিছুই উল্লেখ করেননি তিনি।

এদিকে, জরুরি ভিত্তিতে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদকে বৈঠকে বসার আহ্বান জানিয়েছে ওয়াশিংটন এবং টোকিও। এ ব্যাপারে নিক্কি হ্যালি বলেন, পরবর্তী করণীয় সম্পর্কে ঠিক করার জন্য আলোচনা করতে যাচ্ছি।

তিনি বলেন, জাপানের মতো ১৩ কোটি মানুষের দেশের উপর দিয়ে কোনো রাষ্ট্রই ক্ষেপণাস্ত্র উড়াতে পারে না। মার্কিন এই রাষ্ট্রদূত বলেন, উত্তর কোরিয়ার উপর পরবর্তী নিষেধাজ্ঞার ব্যাপারে আলোচনা করা হবে।

এর আগে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প উত্তর কোরিয়াকে সতর্ক করে দিয়ে বলেন, সংকট সমাধানের সব রকম বিকল্প টেবিলে সাজানো রয়েছে; প্রয়োজনে উত্তর কোরিয়ায় সামরিক হস্তক্ষেপও করা হতে পারে।

মঙ্গলবার সকাল ৬টায় হুয়াসং-১২ ক্ষেপণাস্ত্রটি উৎক্ষেপণ করে উত্তর কোরিয়া। জাপানের উত্তরাঞ্চলের উপর দিয়ে উড়ে গিয়ে প্রশান্ত মহাসাগরে পড়েছে ওই ক্ষেপণাস্ত্র। জাপান ক্ষেপণাস্ত্রটি ভূপাতিত করার কোনো চেষ্টাই করেনি।

north

দেশের উপর দিয়ে ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণকে জঘন্য, নজিরবিহীন এবং আঞ্চলিক শান্তি ও নিরাপত্তায় বড় হুমকি ও ক্ষতি বলে উল্লেখ করেছেন জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে।

উত্তর কোরিয়ার ওই ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছে জাতিসংঘ। নিরাপত্তা পরিষদের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, উত্তেজনা কমাতে উত্তর কোরিয়ার দ্রুত, বাস্তব পদক্ষেপ নেয়া খুবই জরুরি। দেশটির এমন কার্যক্রম জাতিসংঘের সব সদস্য দেশের জন্য হুমকি। তবে পিয়ংইয়ংয়ের ওপর তাৎক্ষণিকভাবে নতুন করে কোনো নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়নি।

অপরদিকে, রাশিয়া এবং চীন বলছে যুক্তরাষ্ট্র এবং দক্ষিণ কোরিয়ার সামরিক মহড়াই ওই অঞ্চলে উত্তেজনা বৃদ্ধি করছে।

জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞা স্বত্ত্বেও কয়েক মাস ধরেই ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালাচ্ছে উত্তর কোরিয়া। এর আগে শুক্রবার এবং শনিবার উত্তর কোরিয়া তিনটি স্বল্প মাত্রার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালিয়েছে। উত্তর কোরিয়ার পূর্বাঞ্চলীয় উপকূলে এই ক্ষেপণাস্ত্রগুলোর পরীক্ষা চালানো হয়।

print