সবেমাত্র এসএসসি শেষ করেছি তখনকার কথা, সালটা এবং মাসটা মনে আছে। তা হলো ২০১৪ সাল। এপ্রিল মাসের মাঝামাঝি সময়। আমি কয়েকটি বই কিনতে নীলক্ষেত যাই। আমি বাসা থেকে মহাখালী যাই এবং সেখান থেকে বাসে উঠি। মহাখালী থেকে ফার্মগেট যেতে আমার সময় লেগেছিল প্রায় দেড় ঘন্টা। রাস্তায় প্রচুর জ্যাম। একাই ছিলাম। ফার্মগেট এসে নেমে পড়লাম। সেখান থেকে রিক্সা নিলাম নীলক্ষেত যাব তাই। রিক্সা কোন এক শর্টকাট অবলম্বন করে আমাকে নীলক্ষেতের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। সেখানে যেতে যেতে হটাৎ রাস্তায় কিঞ্চিৎ গোলমাল দেখলাম। কিছু মানুষ একজনকে বেদম ধোলাই দিচ্ছেন। সেখানে একজনের উচ্চস্বর শুনলাম, সে বলল, “শালা তুই নিজে মেট্রিক পাশ আর এলাকায় জ্ঞান দান শুরু করছিস?” রিক্সাওয়ালা তামাশা দেখার জন্য কিছুক্ষণ দাঁড়িয়েছিল। তখন সেখানে উপস্থিত একজনকে জিজ্ঞেস করে সংক্ষেপে ঘটনা জানলাম। যে লোককে মারা হচ্ছে সে আব্দুল হাকিম। ঐ এলাকার একটি কোনায় সে টোকাইদের বিনামূল্যে পড়ানোর জন্য একটি পাঠশালা খুলে। যার জন্য সে আজ ধোলাই খাচ্ছে। কারণ সে পাঠশালা খুলেছে কিন্তু এলাকার প্রভাবশালীদের চাঁদা দেয়নি। এরপরও আমরা বলে উঠি বাংলাদেশ উন্নয়নশীল।

“শিক্ষা গ্রহন কর আর অর্জিত শিক্ষা সকলকে বিতরণ কর। সে অর্জিত জ্ঞান যত ক্ষুদ্রই হোক না কেন।”

 


শুয়াইব আলম উচ্ছ্বাস শিক্ষার্থী, কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং, ইউনিভার্সিটি অফ এশিয়া প্যাসিফিক


print