স্টাফ রিপোর্টার :
পিরোজপুর জেলার মঠবাড়িয়া সদর ইউপি চেয়ারম্যান এবিএম ফারুক হাসান কর্তৃক মঠবাড়িয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. সৌমিত্র সিংহ রায়কে অফিস চলাকালিন প্রকাশ্যে লাঞ্চিত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার মঠবাড়িয়া হাসপাতালের সম্মুখ সড়কে মানববন্ধন করেছে পৌর শহরের ডায়াগনস্টিক মালিক সমিতি।
ডা. সৌমিত্র সিংহ রায় অভিযোগ করে জানান, গত মঙ্গলবার রাতে মঠবাড়িয়া সদর ইউপি চেয়ারম্যান এবিএম ফারুক হাসান তাকে ফোন করে বলেন তার পেটে গ্যাষ্টিকের ব্যাথার কারনে অসুস্থ লাগছে। তখন তিনি তাকে হাসপাতালে আসার জন্য বলে। পরে রাতেই চেয়ারম্যান ফারুক হাসান হাসপাতালে ভর্তি হন। বুধবার সকালে তিনি যখন হাসপাতালের জরুরী বিভাগের রোগী দেখতে ছিলেন তখন চেয়ারম্যানের সাথের কয়েকজন লোক জরুরী বিভাগে এসে তাকে জানায় যে উপরে চেয়ারম্যান তাকে ডাকছে। তিনি জরুরী বিভাগে রোগী দেখতে ছিলেন তাই তিনি সে সময় যেতে পারেননি। অল্প সময় পরপরই চেয়ারম্যান ফারুক হাসান নিজেই জরুরী বিভাগে এসে তাকে অকথ্য ভাষায় গালাগাল করতে থাকে এবং তাকে বিভিন্ন রকমের হুমকি প্রদান করে চলে যান।
ডা. সৌমিত্র সিংহ রায় আরো জানান, বিষয়টি তিনি তার উপরস্থ কর্মকর্তাদের জানিয়েছেন।
তবে মঠবাড়িয়া সদর ইউপি চেয়ারম্যান এবিএম ফারুক হাসান সকল অভিযোগ অস্বীকার করে জানান, তিনি অসুস্থ ছিলেন রাত থেকেই । সকালে হলেও কোন চিকিৎসক তার সাথে দেখা করনেনি। তিনি কোন কোন চিকিৎসকের সাথে খারাপ আচারন করেনি।
এদিকে এ ঘটনার প্রতিবাদে মানববন্ধনে ডায়াগনস্টিক মালিক সমিতির সভাপতি ফজলুল হক মনির সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, ডায়াগনস্টিক মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ সদস্য আজিম-উল-হক, আওয়ামীলীগ নেতা মিজানুর রহমান মিজু, যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক জুলহাস শাহীন, ড্রাগিষ্ট সমিতির সহ-সভাপতি আমির হোসেন, ফারিয়ার সভাপতি ফেরদৌস মৃধা, ডায়াগনস্টিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক জলিলুর রহমান দুলাল, ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আরিফুর রহমান সিফাত, সাংগঠনিক সম্পাদক আকতারুজ্জামান নিজাম প্রমুখ।
বক্তারা, ইউপি চেয়ারম্যানের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবী জানান। প্রশাসন আগামী তিনদিনের মধ্যে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা না নিলে কঠোর আন্দোলনের ঘোষনা দেয়।

print