বাংলাদেশের ইতিহাস গড়ে টানা দ্বিতীয় মেয়াদের মতো রাষ্ট্রপতি হতে যাচ্ছেন বর্তমান রাস্ট্রপতি এডভোকেট মোঃআব্দুল হামিদ। ইতি পূর্বে স্বাধীন বাংলাদেশে কেউ এই বিরল সন্মান অর্জন করেননি । আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে মহাজোট সরকার ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বরের নির্বাচনের ক্ষমতার আসার পর প্রথম রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন প্রবীণ রাজনীতিবিদ জিল্লুর রহমান। তাঁর মৃত্যুর পর রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন জাতীয় সংসদের তৎকালীন জনপ্রিয়, মিষ্ট ভাষী স্পীকার, বার বার নির্বাচিত সংসদ সদস্য এডভোকেট মোঃআব্দুল হামিদ। রাষ্ট্রপতি হিসেবে দায়িত্ব পালনকালে তিনি দেশে এবং আন্তর্জাতিক অঙ্গনে তিনি সকলের কাছে সদালাপি ও সজ্জন ব্যাক্তি হিসাবে গ্রহণ যোগ্যতা পেয়েছেন। দেশের প্রধান বিরোধীদল বিএনপির কাছেও তিনি একজন গ্রহনযোগ্য ব্যক্তি হিসেবে নিজেকে তুলে ধরতে সমর্থ হয়েছেন। প্রথম মেয়াদকালে তিনি কখনও কোন পক্ষেরই উল্লেখযোগ্য কোন সমালোচনায় বিদ্ধ হননি। তাই সার্বিক বিবেচনায় আসন্ন রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ তাকে দ্বিতীয় বার রাষ্ট্রপতি পদে নির্বাচিত করার জন্য ইতি পূর্বে মন স্থির করেছে বলে জানা গেছে। যদিও সম্প্রতি রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের একাধিক প্রার্থীর নাম শোনা গেলেও সর্বশেষ আওয়ামী লীগ সভানেত্রী বঙ্গবন্ধু কন্য শেখ হাসিনা জনপ্রিয় রাষ্ট্রপতি এডভোকেট মোঃআব্দুল হামিদকে নির্বাচিত করার ব্যপারে সবুজ সংকেত দিয়েছেন। আওয়ামী লীগের একটি দায়িক্তশীল সূত্র বিষয়টি নিউজ৭১ কে জানিয়েছে। আওয়ামী লীগের সূত্রটি আরও জানায় শুরুতে রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে একাধিক প্রার্থীর নাম থাকলের মোঃ আব্দুল হামিদকে দ্বিতীয় মেয়াদে রাষ্ট্রপতি করার ব্যাপারে দলে কোন মতপার্থক্য নেই । শুরুতে নানা গুন্জন শোনা গেলেও মুলত রাষ্ট্রপতি পদে আবারও আব্দুল হামিদের নাম আসায় আওয়ামী শিবিরে খুশীর হাওয়াই বইছে।

রাষ্ট্রপতি এডভোকেট মোঃ আব্দুল হামিদ (জন্ম: ১ জানুয়ারি, ১৯৪৪)।১৯৪৪ সালের ১ জানুয়ারি তারিখে কিশোরগঞ্জের মিটামইন উপজেলার কামালপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন।তিনি নিকলী জিঃ মিঃ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মেট্রিকুলেশন পাশ করেন। কিশোরগঞ্জ সরকারি গুরুদয়াল কলেজ থেকে এইচএসসি ও বিএ পাশ করেন।সরকারী গুরুদয়াল কলেজের ভিপি হিসেবে নির্বাচিত হয়েছিলেন। পেশায় তিনি একজন এডভোকেট।কিশোরগঞ্জ জজ কোর্টে ওকালতি করেছেন। কিশোরগঞ্জ বার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ছিলেন বেশ কয়েকবার।দাম্পত্য জীবনে তিনি স্ত্রী মোছাঃ রশীদা হামিদের সাথে সংসারধর্ম পালন করছেন।রশীদা হামিদ কিশোরগঞ্জ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের নেত্রী এবং তিন ছেলে ও এক কন্যা সন্তানের জনক।
আব্দুল হামিদ ছাত্রজীবন থেকেই রাজনীতির সাথে জড়িত আছেন। আওয়ামী লীগের নেতা হিসেবে তিনি কিশোরগঞ্জ-৪ আসন থেকে ৭ (সাত) বার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করলে জাতীয় সংসদে তিনি ডেপুটি স্পিকারের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছিলেন। ২০০১ সালের জাতীয় সংসদে তিনি বিরোধী দলীয় উপনেতা ছিলেন। ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ দ্বিতীয় মেয়াদে রাষ্ট্র ক্ষমতায় আসলে তিনি বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের স্পীকার নিযুক্ত হন । ২০০৯ সালের ২৫ জানুয়ারি তারিখ থেকে ২৪ এপ্রিল, ২০১৩ সাল পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেছেন। প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের অসুস্থতাজনিত কারণে তাঁর মৃত্যুর ৬ দিন পূর্বেই ১৪ মার্চ, ২০১৩ তারিখে তিনি বাংলাদেশের ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতি হিসেবে আসীন ছিলেন । বর্তমানে তিনি বাংলাদেশের ২০তম রাষ্ট্রপতি। ১৯৭১ সালের বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখায় তাঁকে ২০১৩ সালে স্বাধীনতা দিবস পদকে ভূষিত করা হয়।

print