মানব জগতে যে কয়েকটি কুসংস্কার উল্লেখযোগ্য তার ন্মাঝে একটি হলো কালো বিড়াল। আর সেই কালোবিড়াওল্কে দেখলেই হঠাত থমক দাঁড়ায় মানুষ। মানুষের মতে পথে হঠাত কালো বিড়াল দেখা অশুভ শক্তির লক্ষন।

সেটা শুধু ইউরোপেই নয়, প্রচলিত আছে সারাবিশ্বেই। তবে যুক্তিবাদীদের বক্তব্য, কুসংস্কার নয়। বিড়ালের রাস্তা কাটা এবং গাড়ি থামিয়ে দেওয়ার মধ্যে যুক্তি রয়েছে সামাজিক। তাঁদের বক্তব্য, রাস্তায় গাড়ি চালিয়ে যাওয়ার অথবা হেঁটে যাওয়ার সময় কোনও বিড়াল রাস্তা পার হলে, তখন গাড়ি বা মানুষ দাঁড়িয়ে পড়ে।

তার প্রকৃত কারণ হিসেবে ধরা হয় যে, সাধারণত, বিড়াল জাতীয় প্রাণীদের অন্য বড় আকৃতির পশুরা তাড়া করে। সেক্ষেত্রে বিড়ালকে দেখার পর একটু দাঁড়িয়ে গেলেই ভালো হয়। তাহলে বিপদের সম্ভাবনা কম থাকে।

ইউরোপেও বিড়ালকে অলৌকিক ও অশুভ প্রতীক হিসেবে ধরা হয়। ইউরোপের বিভিন্ন লেখকদের উপন্যাস, রূপকথা, ভৌতিক গল্প ও উপকথায় কালো বিড়ালকে অশুভ শক্তির প্রতীক হিসাবে দেখানোর প্রচলন রয়েছে সেই কবে থেকে।

শুধু ইউরোপেই নয়, গোটা বিশ্ব জুড়েই কালো বিড়ালকে নিয়ে তৈরি হয়েছে অসংখ্য অলৌকিক গল্প-কাহিনি। সাধারণত, এ সব রূপকথার গল্প কাহিনিতে দেখা যায় কালো বিড়াল মানুষের রূপ ধারণ করে ডাইনি, শয়তান বা দানবের অবতারে হাজির হয়।

বাংলা সাহিত্যে বিড়ালের এমন ভৌতিক প্রচলন শুরু হয় আরও কিছু পরে। বিশেষ করে বাংলা ভৌতিক গল্পে কালো বিড়ালকে অতৃপ্ত আত্মা হিসেবে দেখানো হয়।

কালো বিড়ালকে ‘অশুভ’ বলে ধরা হয়। কালো বিড়াল নিয়ে রহস্যের শেষ নেই। বিভিন্ন গল্পে শোনা যায়, অতীতের দিনে যখন গরুতে গাড়ি টানা হতো, তখন কালো বিড়াল রাস্তা পার করলে গরুদের মধ্যে অস্থিরতা লক্ষ করা যেত।

print