মস্তিষ্কের বাইরে অন্য কোথাও স্মৃতি সংরক্ষণ এতোদিন কেবল বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনীতে শোনা যেতো। কিন্তু এবার তা বাস্তবে রূপ নেবার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের একদল বিজ্ঞানীর দাবি, একটি শামুক থেকে আরেকটি শামুকে স্মৃতি প্রতিস্থাপনে সফল হয়েছেন তারা।

যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জলসের ইউনিভার্সিটি অফ ক্যালিফোর্নিয়ার একদল গবেষকের দাবি, তারা একটি শামুক থেকে অন্য শামুকে স্মৃতি প্রতিস্থাপনে সক্ষম হয়েছেন। এই গবেষণাটি সম্প্রতি ই-নিউরো সাময়িকীতে প্রকাশিত হয়েছে। এক্ষেত্রে একটি শামুককে প্রতিরক্ষামূলক প্রতিক্রিয়া শেখাতে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। আর অন্যটি থাকে অপ্রশিক্ষিত।

ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়া লস অ্যাঞ্জলসের জীববিজ্ঞানী ডেভিড গ্লানজম্যান বলেন, “শামুককে সংবেদনশীল করে তুলতে আমরা এদের ধারাবাহিকভাবে বৈদ্যুতিক শক দেই। এবং এরপর তাদের আচরণের ওপর লক্ষ্য রাখি। এমন সময় আপনি যখন এদের বিশেষ কোনো অংশে স্পর্শ করবেন আপনি দেখবেন শামুকটি সংকোচিত হচ্ছে”।

গ্লানজম্যানের মতে, একবার মোলিকুলাস স্থানান্তরিত হয়ে গেলে, অপ্রশিক্ষিত শামুকগুলোকে স্পর্শ করা হলে তারা এমনভাবে আচরণ করে যে, তাদের বৈদ্যুতিক শক দেয়া হয়েছে।

ডেভিড গ্লানজম্যান আরও বলেন, “আমরা একদল শামুককে বৈদ্যুতিক শকের মাধ্যমে প্রশিক্ষণ দেই। তাদের পরীক্ষা করি এবং তাদের প্রতিক্রিয়া দেখি। এরপর প্রশিক্ষিত শামুকের আরএনএ আমরা নতুন শামুকের মধ্যে বসাই। পরে নতুনটিকে শক দিলে দেখা যায়, সেও প্রশিক্ষিত শামুকের মতো আচরণ করছে”।

মানসিক ও স্মৃতি হারানো রোগীদের চিকিৎসায় তার এই গবেষণা দিক নির্দেশনা দেবে বলে দাবি করেন গ্লানজম্যান। তবে অনেক বিজ্ঞানী এতে সন্দেহ প্রকাশ করে বলেছেন, স্মৃতি প্রতিস্থাপন নিয়ে আরও গবেষণা দরকার।

print