রাশিয়া বিশ্বকাপের প্রথম সেমি-ফাইনালে উমতিতির হেড থেকে আসা ওই একমাত্র গোলে জিতেছে দিদিয়ের দেশমের দল। দুর্দান্ত খেলা অধিনায়ক এদেন আজার আর কেভিন ডে ব্রুইনে অনেক সুযোগ তৈরি করলেও এবারের আসরে প্রথমবারের মতো গোলশূন্য রইল রর্বের্তো মার্তিনেসের দল।

মঙ্গলবার সেন্ত পিতার্সবুর্গ স্টেডিয়ামে শুরু থেকেই বল দখল আর আক্রমণে এগিয়ে থাকা বেলজিয়াম গোলের সুযোগ তৈরি করেছিল ১৫তম মিনিটে। ডে ব্রুইনের পাসে ডি-বক্স থেকে এদেন আজারের কোনাকুনি শট দূরের পোস্টের বাইরে দিয়ে যায়। দুই মিনিট পর অপর প্রান্তে ব্লেইস মাতুইদির শট আস্থার সঙ্গে গ্লাভসে নেন গোলরক্ষক থিবো কর্তোয়া।

পরের মিনিটে আবারও ডি-বক্স থেকে জোরালো শট নিয়েছিলেন আজার। ডিফেন্ডার রাফায়েল ভারানে কোনোমতে মাথা লাগানোয় বল ক্রসবারের উপর দিয়ে যায়।

২২তম মিনিটে দুর্দান্ত সেভে বেলজিয়ামকে গোলবঞ্চিত করেন উগো লরিস। কর্নার থেকে বল পেয়ে ডি-বক্স থেকে টবি আল্ডারভাইরেল্ডের আচমকা শট ফেরান ডানে ঝাঁপিয়ে।

৩৯তম মিনিটে দারুণ সেভে ফ্রান্সকেও গোল করতে দেননি কর্তোয়া। কিলিয়ান এমবাপের বাড়ানো বল ধরে বাঁজামাঁ পাভার্দের কোনাকুনি শট ঠেকান পা বাড়িয়ে।

চার মিনিট পর এমবাপের দারুণ ব্যাকহিলে বল পেয়ে শট নিয়েছিলেন অলিভিয়ে জিরুদ। তবে আর্সেনালের এই ফরোয়ার্ডের শট আটকায় রক্ষণে।

বদলি হিসেবে নেমেই ড্রিস মের্টেন্স সমতা ফেরানোর দুটো সুযোগ তৈরি করেছিলেন। ৬১তম মিনিটে তার কাছ থেকে বল পেয়ে ঠিকমতো ভলি নিতে মারেননি অনেকটা ফাঁকায় থাকা ডে ব্রুইনে। আর চার মিনিট পর মের্টেন্সের ক্রসে মারোয়ান ফেলাইনির হেড পোস্টের সামান্য বাইরে দিয়ে যায়।

৮১তম মিনিটে আক্সেল উইতসেলের বাঁক খাওয়া শট ফিরিয়ে আবারও ফ্রান্সের ত্রাতা লরিস। অন্য প্রান্তে যোগ করা ছয় মিনিটে গ্রিজমান আর কোরোঁতাঁ তোলিসোর দুটো শট ঠেকিয়ে ব্যবধান বাড়াতে দেননি কোর্তোয়া।

টানা ২৪ ম্যাচ অপরাজিত থাকার পর হারের স্বাদ পেল বেলজিয়াম। ‘সোনালী প্রজম্মরা’ পেল না প্রথম ফাইনালের স্বাদ।

আগামী রোববার মস্কোর লুজনিকি স্টেডিয়ামে শিরোপা লড়াইয়ে ১৯৯৮ সালের চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্সের প্রতিপক্ষ ক্রোয়েশিয়া ও ইংল্যান্ডের মধ্যে বিজয়ীরা।

আর শনিবার সেন্ত পিতার্সবুর্গ স্টেডিয়ামে হবে তৃতীয় স্থান নির্ধারণী ম্যাচ।

print