মঠবাড়িয়া প্রতিনিধি : পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলার কুমিরমারা বাজারে একটি ভাড়া বাসা থেকে বুধবার রাতে ধিরাজ কুমার গোলদার (৪৮) নামের এক ভুয়া চিকিৎসককে মারিয়া আক্তার সাথী (২৭) নামের নারীসহ আটক করেছে থানা পুলিশ। আটককৃত ধিরাজ কুমার (ডিকে) গোলদার খুলনা জেলার বটিয়াঘাটা থানার বুনারাবাদ গ্রামের অনিল কুমার গোলদারের ছেলে। অপরদিকে মারিয়া আক্তার পার্শ্ববর্তী পাথরঘাটা থানার সিংরাবুনিয়া গ্রামের চান মিয়ার মেয়ে।
থানা ও এলাকাবাসী সূত্রে জানাগেছে, উপজেলার টিকিকাটা ইউনিয়নের কুমিরমারা বাজারে নূরে জান্নাত ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে দীর্ঘদিন ধরে ডিকে গোলদার এসবিবিএস ডাক্তার পরিচয় দিয়ে চিকিৎসা দিয়ে আসছিলেন। এছাড়া গত কয়েক মাস ধরে ওই মুসলিম নারীকে স্ত্রী পরিচয় দিয়ে স্থানীয় হাবিবুর রহমানের বাসা ভাড়া নিয়ে বসবাস করছিল। বিষয়টি সন্দেহ হলে স্থানীয় লোকজন বুধবার রাতে তাদেরকে ঘরের মধ্যে আটক করে থানা পুলিশে খবর দেয়। পুলিশ রাতেই তাদেরকে ঘটনাস্থল থেকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। এঘটনায় বৃহস্পতিবার থানার এসআই তসলিমুর রহমান বাদী হয়ে ব্যভিচার আইনের ২৯০ ধারায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।
স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম রিপন জমাদ্দার জানান, ডিকে গোলদার নিজেকে এমবিবিএস ডাক্তার পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসা দিয়ে আসছিল। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন এলাকায় নারী ঘটিত অভিযোগ রয়েছে।
মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ গোলাম ছরোয়ার জানান, বৈধ সম্পর্ক ব্যতিত ভিন্ন সম্প্রদায়ের সাথে রাত্রীযাপন ও অসামাজিক কাজ করার অপরাধে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃতদের বৃহস্পতিবার আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। উল্লেখ্য, চিকিৎসক ধিরাজ কুমার গোলদারের বিরুদ্ধে মঠবাড়িয়া পৌর শহরের একটি ক্লিনিকে ভুল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যুর অভিযোগে একটি মামলা বিচারাধীন।

print