বিএনপি দেশের জনগণের সঙ্গে ভাঁওতাবাজি ও প্রতারণামূলক কৌশলের আশ্রয় নিয়েছে মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, জাতিসংঘ মহাসচিবের আমন্ত্রণের কথা বলে বিএনপি তথা মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর জাতির সঙ্গে প্রতারণা করেছেন।
যারা জাতিসংঘ নিয়ে এমন প্রতারণা করে তাদের হাতে দেশ নিরাপদ হতে পারে না মন্তব্য করে তিনি বলেন, আমরা যেটা শুনেছি জাতিসংঘের সদর দফতরে গেট থেকে বারবার অনুরোধ করেছে তারা (বিএনপি)। তাদের বক্তব্য ছিল- যে পর্যায়েরই হোক দেখা করিয়ে দিতে। পরে একজন অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি বিরক্ত হয়ে কিছুটা সময় দিয়েছেন।
সোমবার বিকালে আওয়ামী লীগ সভাপতির ধানমণ্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক বৈঠক শেষে তিনি এসব কথা বলেন।
আওয়ামী লীগকে ছাড়া জাতীয় ঐক্য সম্ভব নয় উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, বাংলাদেশের সবচেয়ে প্রাচীন দল, সবচেয়ে জনপ্রিয় দলকে বাদ দিয়ে জাতীয় ঐক্য হবে কেমন করে? তবে জাতীয় ঐক্য না, সেটা হতে পারে তাদের নিজেদের তথাকথিত জাতীয়তাবাদী জাতীয় ঐক্য।
নির্বাচনকে সামনে রেখে যুক্তফ্রন্ট গঠনকে আওয়ামী লীগ কীভাবে দেখছে এমন প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, আমাদের সভাপতি আমাদের নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সব বিষয়গুলোই অবগত। নির্বাচন আসছে এখন বিভিন্ন মেরুকরণ হবে, শত ফুল ফুটবে, আমরা মনে করি এটা গণতন্ত্রের বিউটি। এখন তারা ঠিক করবে তারা কাদের সঙ্গে জোট করবেন, কার সঙ্গে করবেন না।
তিনি বলেন, কামাল সাহেব বলেছেন জামায়াতের সঙ্গে তারা নেই। কাদের সিদ্দিকীও বলেছেন একই কথা। এখন নির্বাচনী মেরুকরণে কোথাকার পানি কোথায় গিয়ে গড়ায়, এটা এই মুহূর্তে বলা খুব মশকিল। তবে নির্বাচনকে সামনে রেখে বিভিন্ন জোট গঠনের যে প্রক্রিয়া এটাকে আমরা স্বাগত জানাই। এর বিরুদ্ধে আমাদের কোনো বক্তব্য নেই।
নির্বাচনকে সামনে রেখে বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার মুক্তি আন্দোলনে নামার জন্য বিএনপির হুমকি প্রসঙ্গে সেতুমন্ত্রী বলেন, ২০১৩, ১৪ ও ১৫ সালের মতো পেট্রলবোমার আন্দোলন কি বিএনপি শুরু করবে? সেই আন্দোলন যদি তারা করতে যায়, সেই ধরনের পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে যায়, তাহলে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে যা যা করণীয়, সমুচিত জবাব দেয়া হবে।
print