স্টাফ রিপোর্টার : পিরোজপুর সদর উপজেলার পাঁচপাড়া বাজারে পাঁচপাড়া সার্বজনিন শ্রী শ্রী কালী মন্দির ভাংচুরের অভিযোগ পাওয়া গেছে জেলা আওয়ামীলীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক ও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান এ্যাডভোকেট মো: শহিদুল ইসলামের বিরুদ্ধে। শনিবার দিবাগত রাত আনুমানিক রাত ২টার দিকে পিরোজপুর সদর উপজেলা শিকদারমল্লিক ইউনিয়নের পাঁচপাড়া বাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে বলে জানান পিরোজপুর সদর থানার ওসি এস এম জিয়াউল হক।
এ ঘটনায় পুলিশ অহেদ হাওলাদার (৪৫), মুহিদুল ইসলাম (৫০) ও আরিফুর রহমান (৩০) নামের তিন জনকে আটক করেছে।
শিকদার মল্লিক ইউনিয়ন পূজা উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক শেখর চন্দ্র ম-ল বলেন, কালী মন্দিরের জায়গা নিয়ে জেলা আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদকও স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মো.শহিদুল ইসলামের সঙ্গে মন্দিরের লোকজনের বিরোধ চলছিল। পরে মন্দির কর্তৃপক্ষ এ নিয়ে মামলা করলেও আদালত তা খারিজ করে দেয়। এর জেরে ইউপি চেয়ারম্যানের লোকজন কালী মন্দির ভাংচুর করে এবং প্রতিমা পাশের ডোবায় ফেলে দেয় ।
শিকদারমল্লিক ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মন্দির কমিটির সভাপতি সুভাষ চন্দ্র মিস্ত্রি জানান, মন্দিরের জায়গা নিয়ে আদালতে মামলা চলমান। এ অবস্থায় ইউনিয়নের চেয়ারম্যান তার লোকজন দিয়ে মন্দিরটি ভেঙে জায়গা দখল করতে চাচ্ছে। রাত দেড়টার দিকে ৫০-৬০ জনের একটি দল অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে মন্দিরে হামলা চালিয়ে কালী প্রতিমা ভেঙে খালে ফেলে দেয়। মন্দিরের একপাশের ইটের গাথুনি ভেঙে ফেলেছে। আরসিসি পিলার মেশিন দিয়ে কেটে ফেলার চেষ্টা করছে। মন্দিরের নির্মাণ কাজের জন্য আনা আড়াই হাজার ইটসহ এক ব্যবসায়ীর ইট লুটপাট করে নিয়ে গেছে দুর্বৃত্তরা।
তিনি আরও জানান, এ সময় হামলাকারীরা হামরা চালিয়ে গৌরাঙ্গ লাল মাঝি (৫৫), দিলিপ মৃধা (৩৫) এবং শুকুরঞ্জন ম-ল (৩৬) নামে তিনজন আহত হন। একপর্যায়ে এলাকাবাসীর প্রতিরোধের মুখে হামলাকারীরা পালিয়ে যায়।
এদিকে, মন্দির ভাঙচুরের প্রতিবাদে বাজারের ব্যবসায়ী এবং এলাকাবাসী পাঁচপাড়ায় পিরোজপুর-নাজিরপুর সড়কে গাছ ফেলে সড়ক অবরোধ করে। পরে সকালে পুলিশ প্রশাসনের হস্তক্ষেপে তারা অবরোধ তুলে নেয়।
পিরোজপুর সদর থানার ওসি এস এম জিয়াউল হক বলেন, ‘খবর পেয়ে রাতেই ঘটনাস্থলে পুলিশ গিয়েছে। এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। হামলার সন্দেহভাজন হিসেবে দুইজনকে আটক করা হয়েছে।
পিরোজপুর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোল্লা আজাদ হোসেন বলেন, ‘মন্দিরের জায়গা বিষয়ে আদালতে মামলা রয়েছে। তবে মন্দিরে হামলা ও ভাঙচুরের বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এলাকার পরিস্থিতি বর্তমানে শান্ত রয়েছে।’
এ দিকে পাঁচপাড়া বাজারের মন্দিরের ঘটনাস্থ পরিদর্শন করেছেন জেলা প্রশাসক আবু আহমেদ ছিদ্দীকী, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ছালাম কবির, পিরোজপুর জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও পৌর মেয়র আলহাজ্ব মো: হাবিবুর রহমান মালেক সহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ।
ঘটনাস্থলে জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও পৌর মেয়র আলহাজ্ব মো: হাবিবুর রহমান মালেক বলেন, আপনাদের সাথে আমরা সবাই আছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সম্প্রদায়িত সম্প্রীতি বজায় রাখতে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। তার নেতৃত্বেই আমরা আপনাদের পাশে আছি। আসন্ন দূর্গোৎসব পালনে আপনাদের সাথে থেকে এই উৎসব আমরা সবাই পালন করবো। আর প্রশাসনকে বলতে চাই এ ঘটনার সাথে যারা জড়িত তাদের অবিলম্বে আইনের আওতায় আনতে হবে।

print