বেচারা এ.কে. (নামের আদ্যক্ষর)! সদ্য বয়ঃসন্ধিকাল পেরুনো এই তুর্কি কিশোর সম্ভবত নচিকেতার ‘প্রকাশ্যে চুমু খাওয়া এই দেশে অপরাধ ঘুষ খাওয়া কখনোই নয়’ গানের লাইনটি শোনেনি। শুনলে এই ভুল সে কখনো করতো না। একটা চুমু খেয়ে বেচারার প্রাণ এখন ওষ্ঠাগত। আদালতের রায়ে তার জেল হয়েছে চার বছর।

চমকপ্রদ এই ঘটনা ঘটেছে তুরস্কের আন্তালিয়া প্রদেশে। স্কুলপড়ুয়া এ.কে. ১৩ বছর বয়সি বান্ধবীকে স্কুল ক্যাম্পাসে হাসি-ঠাট্টার ছলে চুম্বন করে। মাত্র একবার। যদিও এই দৃশ্য ধারণ করে তারই আরেক বান্ধবী। পরে তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

আর এতেই স্কুল কর্তৃপক্ষ মামলা ঠুকে দেয়। অভিযুক্তের আইনজীবী তার মক্কেলের বয়স বিবেচনা করে সাজা কমানোর আবেদন করেন। কিন্তু আদালত ওই আবেদন খারিজ করে দেন।  আদালতের রায়ে এ.কে’র চার বছরের জেল হয়েছে।

ছাড়া পায়নি ভিডিও ধারণকারীও। ‘আপত্তিকর ছবিতে শিশুকে ব্যবহার’ করার অপরাধে তাকেও  বিচার প্রক্রিয়ায় উপস্থিত থাকতে বাধ্য করা হয়। পাশাপাশি এ ধরনের ভিডিও ছড়ানোর অপরাধে আরো চারজনকে এই মামলায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়। যদিও পরে এই পাঁচজনকে মামলা থেকে অব্যাহতি দেন আদালত।

print