বৃহস্পতিবার, ০৫ অগাস্ট ২০২১, ০৩:১৪ অপরাহ্ন

শিরোনাম
পিরোজপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের নতুন কমিটি ঘোষনা করোনা আক্রান্ত হলেন পিরোজপুরের জেলা প্রশাসক আবু আলী মো: সাজ্জাদ হোসেন প্রশাসনকে তোয়াক্কা না করে লকডাউনে পিরোজপুর সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানের মোটরসাইকেল মহড়া কঠোর লকডাউন উপেক্ষা করে ছাত্রলীগের ফুলেল শুভেচ্ছা নিলেন ইন্দুরকানীর ইউএনও পিরোজপুরে জরিমানার না করে খাদ্য সহায়তা দিয়ে বাড়ি পাঠিয়ে দিলেন ইউএনও শ্রীশ্রী মদনমোহন জিউল মন্দিরের (আখড়াবাড়ী মন্দির) নতুন কমিটি গঠন মুজিববর্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহারে ঘরে “ঈদ উপহার” পিরোজপুরে পুলিশের বাঁধা উপেক্ষা করে এহসানের ভুক্তভোগীদের মানববন্ধন : প্রতারক রাগীবের গ্রেপ্তারের দাবী পিরোজপুরে বিদ্যালয় ভবনের নির্মাণে নিম্নমানের কাজের অভিযোগ : খুলে পড়ছে কলামের পলেস্টার পিরোজপুরে কোভিড-১৯ রোগীদের জন্য ফ্রি অক্সিজের ব্যাংক উদ্বোধন

মুসলিম ক্রিকেটারের গায়ে মদ ঢালা নিয়ে তুলকালাম!

মুসলিম খেলোয়াড়েরা মদ থেকে দূরে থাকেন। অনেক ক্রিকেটার এবং ফুটবলাররা মদ প্রস্তুতকারক কোম্পানির লোগো পর্যন্ত নিজেদের জার্সিতে ব্যবহার করেন না। এবার বব উইলিস ট্রফিতে একটি ঘটনা বিতর্কের জন্ম দিয়েছে। শিরোপাজয়ী এসেক্সের ক্রিকেটারেরা ট্রফি নিয়ে লর্ডসের বারান্দায় মদ ছিটিয়ে উল্লাস করছিলেন। সেই দলে ছিলেন মুসলিম ক্রিকেটার ফিরোজ খুশি। যার ওপরে তার এক সতীর্থ মদ ঢেলেছিলেন। এ নিয়ে সোশ্যাল সাইটে চলছে শোরগোল।
সেক্সে জন্ম নেওয়া ২১ বছর বয়সী ফিরোজ একজন মুসলিম ক্রিকেটার। তার ওপর বিয়ার ঢেলেছিলেন অতিরিক্ত উইকেটরক্ষক উইল বাটলম্যান। এসেক্স ক্রিকেটারদের এমন আচরণের সমালোচনা করে পূর্ব লন্ডনে জাতীয় ক্রিকেট লিগের প্রতিষ্ঠাতা সাজিদ প্যাটেল বলেছেন, ‘ফিরোজ বারান্দার কোনায় দাঁড়িয়ে ছিল। নড়তেও পারছিল না। একটা কাজই সে করতে পারত-লাফ দেওয়া। তার গায়ে কারও অ্যালকোহল জাতীয় পদার্থ ঢালার ছবিটা একটি নারকীয় দৃশ্য।’তবে এসেক্সের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ফাইনালের দ্বাদশ খেলোয়াড় ফিরোজ খুশির ওপর বিয়ার ঢালাটা স্রেফ শিরোপা জয় উদযাপনের আনন্দে হয়েছে। এর মধ্যে নেতিবাচক কোনো উদ্দেশ্য ছিল না। তবে শিরোপাজয়ের উৎসবটা দেশের ‘মূল্যবোধ’-এর সঙ্গে মানানসই ছিল না বলে মনে করছে কাউন্টি দলটি। তারা এজন্য ক্ষমাও চেয়েছে। ব্রিটেনের সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্যের ওপর খেলোয়াড়দের আরও সচেতন করার পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে এসেক্স ঘোষণা করেছে।

এখন ব্রিটেনে প্রথম শ্রেণির ১৮টি কাউন্টি দল মিলিয়ে কৃষ্ণাঙ্গ, এশিয়ান ও সংখ্যালঘু ক্রিকেটার মাত্র ৩৩ জন। এসেক্সের বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘বহুদিন ধরেই আমাদের দলে জাতিগত বৈচিত্র্য, আলাদা আলাদা ধর্মের ক্রিকেটাররা খেলে আসছেন। ক্লাব এই জাতিগত বৈচিত্র্য নিয়ে সচেতনতা বাড়াতে কঠোরভাবে পরিশ্রম করে যাচ্ছে। তবে খেলায় জাতিগত বৈচিত্র্য ও সাংস্কৃতিক পার্থক্য নিয়ে খেলোয়াড়দের সচেতন করতে আরও কাজ করতে হবে।’

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2017 gramersamaj.com
Design & Developed BY NCB IT