শনিবার, ১৫ Jun ২০২৪, ১০:৩৬ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম
ঘূর্ণিঝড় রেমালে ক্ষতিগ্রস্থ মানুষের জন্য কমিউনিটি পরিচালিত খাদ্য সহায়তা কর্মসূচী’র উদ্বোধন তীব্র দাবদাহ থেকে রক্ষা পেতে পিরোজপুরে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতার বিশুদ্ধ পানি ও খাবার স্যালাইন বিতরণ পিরোজপুরে মহান মে দিবস পালিত পিরোজপুরে কালবৈশাখী ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে নগদ টাকার চেক ও টিন বিতরণ পিরোজপুরে রূপালী ব্যাংকের একাউন্ট ওপেনিং ক্যাম্পেইন অনুষ্ঠিত বিলুপ্তপ্রায় শীতল পাটি শিল্পকে বাঁচিয়ে রাখতে রূপালী ব্যাংকের প্রকাশ্যে কৃষি ঋন বিতরন পিরোজপুরে রূপালী ব্যাংকের বার্ষিক ব্যবসায়িক সম্মেলন অনুষ্ঠিত পিরোজপুরে জাতীয় পরিসংখ্যান দিবস পালিত পিরোজপুরে জাতীয় স্থানীয় সরকার দিবস পালিত বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে সরস্বতী পূজা সামনে রেখে একাউন্টিং বিভাগে ধর্মীয় আয়োজনে বিধি নিষেধ

পিরোজপুরে কোরবানির হাট কাঁপাবে ৩২ মণ ওজনের “লাল বাদশা”

হাসিবুল ইসলাম হাসান :
পিরোজপুর সদর উপজেলায় আসন্ন ঈদ-উল-আজহা কে সামনে রেখে কোরবানির জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে জেলার সবচেয়ে বড় গরু “লাল বাদশা”। শাহী ওয়াল জাতের এ গরুটির ওজন ৩২ মণ। কোরবানিতে গরুটিকে বিক্রি করে নিজ জীবন-সংসারকে আলোকিত করার স্বপ্ন দেখছেন মালিক সাখাওয়াত হোসেন।
“লাল বাদশা” বর্তমানে জেলার সবচেয়ে বড় গরু বলে জানিয়েছেন পিরোজপুর সদর উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. শুভঙ্কর দত্ত।
সরেজমিনে দেখা যায়, দৈহিক উচ্চতা ও গড়নে যেমন, তেমনি তার চলাফেরা। মেজাজ প্রচন্ড গরম। নড়াচড়া করাতেই তার জন্য প্রয়োজন হয় ৭/৮ জন লোক। প্রতিদিনই তাকে ২/৩ বার গোসল করাতে হয়। সেক্ষেত্রে এই গরুটিকে ভরনপোষনে হিমসীম খাচ্ছেন মালিক সাখাওয়াত হোসেন। পিরোজপুর সদর উপজেলার কদমতলা ইউনিয়নের ভোরা এলাকায় গরুটিকে দেখতে অনেক দূর-দূরান্ত থেকে মানুষ ছুটে আসছেন। প্রায় সাড়ে ৫ ফুট উচ্চতার লাল রঙের লাল বাদশাকে নিয়ে ইতিমধ্যেই এলাকায় আলোড়নের সৃষ্টি হয়েছে।

গরুটির মালিক সাখাওয়াত হোসেন বলেন, “গরু লাল বাদশার খাদ্য তালিকায় রয়েছে দেশী ঘাস, খৈল, ভূষিসহ সকল দেশীয় খাদ্য। দিনে দুই থেকে তিন বার গোসল করাতে হয়। বর্তমানে গরু লাল বাদশা ওজন প্রায় ৩২ মণ হয়েছে। এ বছর সঠিক পরিচর্যায় আসন্ন ঈদ-উল-আযহা উপলক্ষে বিক্রির উদ্দেশ্যে লাল বাদশার দাম হাঁকা হয়েছে ৮ লাখ টাকা। মানুষ যাতে তাকে এসে দেখে যায় আমার সেই আহ্বান থাকবে।’
তিনি এ বিষয়ে আরো বলেন, ‘ শাহী ওয়াল জাতের এই গরুটিকে আমি বাছুর অবস্থায় কিনে আনছিলাম। প্রাকৃতিকভাবে আমরা ২ স্বামী-স্ত্রী ঘাস, খড়-কুটা খাইয়ে গরুটিকে এই ৪ বছর লালন-পালন করছি। এখন আর তার সাথে শক্তিতে পারি না। ৮ লক্ষ টাকায় গরুটিকে বিক্রি করতে পারলে আমার খরচের জায়গাটা থাকে। ০১৭৮৭-০৭১৭৪৬ এবং ০১৭২৮৫৪৩৬২০ এই নাম্বারে যোগাযোগ করলে আমার সাথে কথা বলা যাবে।

কদমতলা ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো: জাহাঙ্গীর আলম বলেন, নিজ প্রচেষ্টায় গরুটিকে এ পর্যন্ত নিয়ে কয়েকবছর যাবৎ মালিক সাখাওয়াত অনেক কষ্ট করে লালন-পালন করেছেন। যার ফলে দেশীয় পদ্ধতিতে কৃত্রিম কোন কিছু ছাড়াই এই গরুটির অবস্থান আজ এমন। তিনি ঈদ-উল-আযহা উপলক্ষে বিক্রির উদ্দেশ্যে গরুটি তৈরি করেছেন বলে জানিয়েছেন।

পিরোজপুর সদর উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. শুভঙ্কর দত্ত জানান, আমরা গরুটির সম্পর্কে আমি খোঁজ নিয়ে জানতে পেরেছি। লাল বাদশা বর্তমানে পিরোজপুর জেলার সব থেকে বড় গরু। লাল বাদশা ছাড়াও এই উপজেলায় আসন্ন ঈদ-উল-আযহা উপলক্ষে বিক্রির উদ্দেশ্যে ৩ হাজার ৩৮০টি টি গরু ও ৪ হাজার ৫৪৫ টি ছাগল-ভেড়া প্রস্তুত রয়েছে। যা আমাদের উপজেলার চাহিদা মিটিয়ে অন্য উপজেলায় বিক্রি হবে বলে আশা করছি।

 

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2017 gramersamaj.com
Design & Developed BY NCB IT